দর্শনীয় স্থান

নাম কিভাবে যাওয়া যায় অবস্থান
সুন্দরবন ঢাকা হতে বাস যোগে শ্যামনগর উপজেলা হয়ে মুন্সিগঞ্জ বাস ষ্ট্যান্ড অথবা বুড়িগোয়ালিনির নীললডুমুর হতে ফরেষ্ট অফিস হতে পাস গ্রহন করে নৌকা অথবা ট্রলার যোগে সুন্দববনে গমন। মুন্সীগঞ্জ ইউনিয়ন
ভবদহ নওয়াপাড়া থেকে পাকা রাস্তা দিয়ে পায়রা ইউনিয়ন হয়ে গাড়ী বা মটর সাইকেল যোগে ভবদহ এলাকায়া যাওয়া যায়। পায়রা ইউনিয়নে অবস্তিত
রুপ সনাতন ধাম, অভয়নগর নওয়াপাড়া বাজার হতে মটর সাইকেল বা ট্রেকার যোগে সুন্দলী ইউনিয়নের রামসরা ধামে যাওয়া যায়। সুন্দলী ইউনিয়নে অবস্তিত
নওয়াপাড়া পীরবাড়ী নওয়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড হতে ২০০ গজ দক্ষিণে নওপাড়া পীরবাড়ী দেখা যাবে।এখানে পীর সাহেবের মাজার, বিশালাকৃতির এতিমখানা ও পীরবাড়ী শাহী মসজিদ অবস্থিত। এখানে প্রতি সপ্তাহে ছু্টির দিনে প্রচুর লোকের সমাগম ঘটে। নওয়াপাড়া পীরবাড়িটি নওয়াপাড়া শহের অবস্থিত।
পুড়াখালী বাওড় নওয়াপাড়া বাজার হতে ভৈরব নদীর ফেরি পার হয়ে মটর সাইকেল,অটো রিক্সা,ভ্যান যোগে পুড়াখালী বাওড়ে যাওয়া যায়। অভয়নগর উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নে অবস্তিত
ঝাপা বাওড় সড়ক পথে- ঢাকা থেকে ঢাকা-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে যশোর অতিক্রম করে রাজার হাট নামক স্থান হতে সাতক্ষীরা রোডে প্রায় ১৪ কিঃমিঃ মণিরামপুর উপজেলা পরিষদ ।পরিষদ হতে রাজগঞ্জ বাজার সংলগ্ন ঝাপা বাওড় ১০ কি:মি: । যশোর পালবাড়ী থেকে রাজগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড হয়ে ২২কিঃমিঃ দক্ষিণে রাজগঞ্জ বাজার সংলগ্ন ঝাপা বাওড়। খুলনা ও সাতক্ষীর হতে খুলনা-সাতক্ষীরা রোডের চুকনগর নামক স্থান হতে যশোর দিকে ২৬কিঃ মণিরামপুর উপজেলা পরিষদ। পরিষদ হতে রাজগঞ্জ বাজার সংলগ্ন ঝাপা বাওড় ১০ কি:মি: । মণিরামপুর,যশোর।
দমদম পীরের ডিবি সড়ক পথে- ঢাকা থেকে ঢাকা-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে যশোর অতিক্রম করে রাজার হাট নামক স্থান হতে সাতক্ষীরা রোডে প্রায় ০৭ কিঃমিঃ মণিরামপুর এর দিকে সড়ক সংলগ্র ভোজগাতী ইউপির অধীন। মণিরামপুর,যশোর।
কপোতাক্ষ নদ উপজেলা থেকে গরুঘাটার মোর থেকে মোটর সাইকেল কিংবা নসিমন যোগে যাওয়া যায়। কলারোয়া, সাতক্ষীরা
রাজা সীতারাম এর রাজপ্রাসাদ মাগুরা সদর হতে ২৮ কি.মি. দূরে মহম্মদপুর উপজেলায় রাজাবাড়ী নামক স্থানে রাজা সীতারাম রায়ের বাড়িটি অবস্থিত। মহম্মদপুর বাস স্ট্যান্ড হতে আধা কিলোমিটার উত্তরে পাকা রাস্তার পার্শ্বে রাজবাড়ির অবস্থান। রিক্সা, ভ্যান অথবা পায়ে হেটে যাতায়াত করা যায়। মোহাম্মদপুর সদর উপজেলা, মাগুরা
হজরত পীর মোকাররম আলী শাহ (র:) এর দরগাহ মাগুরা জেলা শহর হতে ০৭ কিলোমিটার পশ্চিমে মাগুরা-ঝিনাইদহ বিশ্বরোডে ইছাখাদার ডান দিকে নবগঙ্গা নদীর তিরে হজরত পীর মোকাররম আলী শাহ (র:) এর দরগাহ অবস্থিত। বাস, টেম্পু ও ভ্যানযোগ যাতায়াত করা যায়। ইছাখাদা , হাজরাপুর ইউনিয়ন, মাগুরা সদর, মাগুরা
ভাতের ভিটা মাগুরা জেলা শহর হতে প্রায় ১২ কিলোমিটার দক্ষিণে মঘি ইউনিয়নে ফটকী নদীর তীরে টিলা গ্রাম অবস্থিত। যশোর-মাগুরা সড়কে বাস ও ভ্যানযোগ যাতায়াত করা যায়। টিলা, মঘি ইউনিয়ন, মাগুরা সদর, মাগুরা
নেংটা বাবার আশ্রম মাগুরা জেলা শহর হতে প্রায় ০১ কিলোমিটার পূর্বদিকে নবগঙ্গা নদীর দক্ষিণ তীরে অবস্থিত। রিক্সা ও ভ্যানযোগ যাতায়াত করা যায়। সাতদোহা, মাগুরা সদর, মাগুরা
সিদ্ধেশ্বরী মঠ মাগুরা শহর হতে ৩ কি.মি. উত্তরে আঠারখাদা গ্রামে নবগংগা নদীর তীরে সিদ্ধেশ্বরী মঠ। টেম্পু, রিক্সা ও ভ্যানযোগে যাতায়াত করা যায়। আঠারখাদা, মাগুরা সদর, মাগুরা
শ্রীপুর জমিদার বাড়ী মাগুরা সদর হতে উত্তরে ১৫ কি.মি. উত্তরে শ্রীপুর উপজেলা সদরে জমিদার বাড়ী অবস্থিত। মাগুরা হতে বাসযোগে শ্রীপুর স্ট্যান্ডে নেমে ১ কি.মি. শ্রীপুর-সাচিলাপুর রাস্তায় গেলে বামপার্শ্বে জমিদার বাড়ী। সাচলাপুর,শ্রীপুর, মাগুরা
মদনমোহন মন্দির মাগুরা জেলা শহর হতে মাগুরা-নড়াইল সড়কে প্রায় ১৪ কিলোমিটার পূর্ব দক্ষিণ কোণে শত্রুজিৎপুর গ্রামে নবগঙ্গা নদীর তীরে মদনমোহন মন্দিরটি অবস্থিত। বাস, টেম্পু ও ভ্যানযোগ যাতায়াত করা যায়। শত্রুজিৎপুর , মাগুরা সদর, মাগুরা
কেরু এন্ড কোং চুয়াডাঙ্গা হতে বাস, অটো,যোগে যাওয়া যায় দর্শনা
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কুষ্টিয়া শহর হতে রবীন্দ্রনাথ এর কুটি বাড়ির দূরুত্ব প্রায় ২০ কিলোমিটার। কুষ্টিয়া শহর হতে অটো রিক্সা, সিএনজি ও ইজি বাইক ও অন্যান্য বাহন যোগে সহজেই এবং খুবই কম খরচে শিলাইদহ কুটি বাড়ি যাওয়া যায়। শিলাইদহ, কুমারখালী, কুষ্টিয়া।
মহাকবি মাইকেল মধু সূদন দত্তের বাড়ি সড়ক পথে- ঢাকা থেকে ঢাকা-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে যশোর অতিক্রম করে রাজার হাট নামক স্থান হতে সাতক্ষীরা রোডে প্রায় ৩৬ কিঃমিঃ কেশবপুর উপজেলা পরিষদ ।পরিষদ হতে কেশবপুর টু সাগরদাঁড়ী প্রায় ১৬ কি:মি: অতিক্রম করে মহাকবি মাইকেল মধুসূধন দত্তের পৈত্রিক জন্ম ভূমি। সাগরদাঁড়ী ইউনিয়নে
সুলতান কমপ্লেক্স, নড়াইল ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর । নড়াইল শহর
বাঁধা ঘাট ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর । রূপগঞ্জ, নড়াইল শহর, নড়াইল সদর ।
মধুপল্লী সড়ক পথে- ঢাকা থেকে ঢাকা-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে যশোর অতিক্রম করে রাজার হাট নামক স্থান হতে সাতক্ষীরা রোডে প্রায় ৩৬ কিঃমিঃ কেশবপুর উপজেলা পরিষদ ।পরিষদ হতে কেশবপুর টু সাগরদাঁড়ী প্রায় ১৬ কি:মি: অতিক্রম করে মহাকবি মাইকেল মধুসূধন দত্তের পৈত্রিক জন্ম ভূমি। সাগরদাড়ি
ভরতের দেউল কেশবপুর উপজেলা সদর হতে ঊনিশ কি.মি দক্ষিণ-পর্ব দিকে ভদ্রা নদীর তীরে ভরতের দেউল অবস্থিত ভরত ভায়না, কেশবপুর, যশোর
মীর্জানগর হাম্মামখানা কেশবপুর হতে ৭ কি.মি. পশ্চিমে কপোতাক্ষী ও বুড়িভদ্রা নদীর সঙ্গমস্থল ত্রিমোহিনী নামক স্থানে ত্রিমোহিনী, কেশবপুর, যশোর
মিয়ার দালান মুরারীদহ ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ০৩ কি.মি)
গোড়ার মসজিদ কালীগঞ্জ উপজেলার ঝিনাইদহ-যশোর যেতে প্রাই ২৫ কি:মি: দুরে বারোবাজার ইউনিয়নের বেলাট দৌলতপুর মৌজায় অবস্থিত। কালীগঞ্জ, ঝিনাইদহ
শৈলকুপা শাহী মসজিদ ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে সড়ক পথে বাস অথবা সিএনজি যোগে শৈলকুপা শাহী মসজিদে যেতে হয়(ঝিনাইদহ থেকে দুরত্ব ২৮ কি.মি)। মসজিদটি শৈলকুপা শহর এর পাশে দরগাপাড়ায় অবস্থিত।
বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখ কমপ্লেক্স ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে কালনা ফেরি ঘাট হয়ে নড়াইল সদর আসতে চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের নুর মোহাম্মদনগর। ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা। নুর মোহাম্মদনগর, চন্ডিবরপুর, নড়াইল সদর।
মুক্তিযোদ্ধা গণ কবর চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর থেকে বাস যোগে জীবননগর তারপর জীবননগর থেকে ৯ কিঃ মিঃ পাকারাস্তা রিকসা বা ভ্যান যোগে উথলী ইউনিয়নের মাধবখালী বটতলা হয়ে মাধবখালী মুক্তিযোদ্ধা কবরস্থান যেতে হয় । জীবননগর উপজেলার ধোপাখালী সীমান্তের জিরো পয়েটে
শরৱচন্দ্রের স্মৃতি বিজড়িত- কাশীপুর জমিদার বাড়ী চুয়াডাঙ্গা জেলা শহর অথবা জীবননগর উপজেলা থেকে বাস যোগে উথলী ইউনিয়নের সন্তোষপুর বাসস্ট্যান্ড তারপর সন্তোষপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে ৭ কিঃ মিঃ পাকারাস্তা ভ্যান যোগে কাশিপুর জমিদার বাড়ী যেতে হয় । জীবননগর উপজেলার উথলী ইউনিয়নের কাশীপুর গ্রাম
কে.পি. বসুর বাড়ী ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি যোগে কে.পি বসুর বাড়ী যেতে হয়। ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ২০ কি.মি হরিশংকরপুর ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ২০ কি.মি)
গলাকাটা মসজিদ ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি দ্বারা এই গলাকাটা মসজিদটিতে যাওয়া যায় ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ৩০ কি.মি) বারোবাজার-তাহেরপুর ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ৩০কি.মি)
জোড়বাংলা মসজিদ ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি দ্বারা এই মসজিদটিতে যাওয়া যায় ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ৩০ কি.মি) বারোবাজার ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ৩০কি.মি)
সাতগাছিয়া মসজিদ ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি দ্বারা এই মসজিদটিতে যাওয়া যায় ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ৩৪ কি.মি) সাতগাছিয়া, বারোবাজার ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ৩৪ কি.মি)
দত্তনগর কৃষি খামার ঝিনাইদহ হতে স্থানটির দুরত্ব ৪৮-৫০ কিঃ মিঃ। ঝিনাইদহ হতে বাসযোগে সড়কপথে কালীগঞ্জ । এরপর কালীগঞ্জ হতে বাসযোগে জীবণনগর গিয়ে সেখান থেকে বাসযোগে দত্ত্বনগর যেতে হবে। মহেশপুর, ঝিনাইদহ
মল্লিকপুরের বটগাছ ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি দ্বারা এই প্রাচীন বটগাছটি দেখতে যাওয়া যায় ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে ২৫ কি.মি) সুইতলা-মল্লিকপুর, কালীগঞ্জ ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ২৫ কি.মি)
ঢোল সমুদ্র দীঘি ঝিনাইদহ শহরের কাছে অবস্থিত। এটি ভ্যান রিক্সা, ইজিবাইক যোগে এই বিখাত ঢোল সমুদ্র দীঘি যাওয়া যায়।(শহর থেকে ৪কি:মি: পশ্চিমে অবস্থিত) পাগলাকানাই, ঝিনাইদহ ( ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ৫ কি.মি)
চিত্রা রিসোর্ট, সীমাখালী, নড়াইল। ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর। ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা। চিত্রা রিসোর্ট, সীমাখালী, নড়াইল শহর, নড়াইল সদর।
নিরিবিলি পিকনিক স্পট নড়াইল সদর থেকে লক্ষীপাশা বাসষ্ট্যান্ড যেতে লক্ষীপাশার কাছাকাছি হাতের বাম সাইডে এই স্থানটি অবস্থিত। তাছাড়া ঢাকা থেকে মায়া ফেরিঘাট এবং কালনা ফেরীঘাট পার হয়ে লোহাগড়া যেয়ে সোজা ১ এক কি:মি: সামনে অবস্থিত। যোগাযোগ: ০১৭১১০৭৪০৮৫ লোহাগড়া উপজেলা থেকে নড়াইল সদর যেতে মাত্র ১ কি:মি: সামনে হাতের ডান সাইডে
ইতনার বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক নীহাররঞ্জন গুপ্তের পৈত্রিক নিবাস লোহাগড়া উপজেলা পরিষদ হতে পূর্ব দিক দিয়ে কুন্দশী গ্রামের মাঝ দিয়ে একই সড়ক দিয়ে ইতনা গ্রামে অবস্থিত। বর্তমান অবস্থানঃ নড়াইল>লোহাগড়া>ইতনা গ্রাম (মহাময়া মঠ)। দূরত্বঃ লোহাগড়া হতে আনুমানিক ১০ কি: মি: নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলার ইতনা ইউনিয়নের ইতনা গ্রামে অবস্থিত।
স্বাধীনতা স্মৃতিস্তম্ভ, নড়াইল ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর । ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বর
৭১-এর বধ্যভূমি, নড়াইল ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে কালনা ফেরি ঘাট হয়ে নড়াইল সদর, ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা। নড়াইল জজ কোর্টের পিছে চিত্রা নদীর পাড়ে।
নড়ইল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর। ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা। নড়াইল শিল্পকলা একাডেমি চত্বর, নড়াইল।
বরেণ্য চিত্র শিল্পী এসএম সুলতানের সমাধি ঢাকা থেকে সড়ক পথে আরিচা ফেরী পার হয়ে নড়াইল সদর। ঢাকা থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ৩১০ কিঃমিঃ সময়-৫/৬ ঘন্টা। বরেণ্য চিত্র শিল্পী এসএম সুলতান কম্প্লেক্স, নড়াইল সদর।
শিয়েল পীরের মাজার চুয়াডাঙ্গা জেলা সদর থেকে ১.৫ কি: মি: দুরে দৌলতদিয়াড় গ্রাম সংলগ্ন শিয়েল পীরের মাজার অবস্থিত। রিক্সা/ভ্যান যোগে যাওয়া যায়। দৌলতদিয়াড়
গড়াইটুপি অমরাবতী মেলা চুয়াডাঙ্গা শহর থেকে সরোজগঞ্জ বাজার তারপর ভ্যান যোগে তিতুদহ ইউনিয়নের গড়াইটুপি গ্রামে হযরত খাজা মালিক উল গাউস (রাঃ) এর মাজার অবস্থিত। চুয়াডাঙ্গা
সাতক্ষীরার দর্শনীয় নলতা শরীফ সাতক্ষীরা জেলার অন্যতম একটি উপজেলা কালীগঞ্জ। এ উপজেলারই একটি গ্রাম নলতা। নলতা বাস স্ট্যান্ডেই এই মাজার শরীফের অবস্থান। সাতক্ষীরা জেলার অন্যতম একটি উপজেলা কালীগঞ্জ। এ উপজেলারই একটি গ্রাম নলতা। শান্ত, শ্যামল ও সৌম্য এ গ্রামটি আজ দেশ-বিদেশে ব্যাপকভাবে পরিচিত।
ঐতিহাসিক গির্জা শহর থেকে আনুমানিক দুরত্ব ৭৫ কিলোমিটার। রাস্তার নাম সাতক্ষীরা শ্যামনগর সড়ক (স্থান-শ্যামনগর)। স্পটে পৌছানোর ব্যয় ৬৫.০০ টাকা। ভ্রমণের জন্য পাওয়া যায় বাস ও ভ্যান। সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর গ্রামে বাংলাদেশের প্রথম খ্রিস্টান গির্জা অবস্থিত ছিল
গুনাকরকাটি মাজার প্রয়োজনীয় তথ্য শহর থেকে আনুমানিক দুরত্ব ৩৫ কিলোমিটার। রাস্তার নাম সাতক্ষীরা-আশাশুনি-দরগাহপুর সড়ক। স্পটে পৌছানোর ব্যয় ৪০ টাকা। ভ্রমণের জন্য পাওয়া যায় বাস, বেবী টেক্সি রিকসা, ভ্যান আশাশুনি উপজেলার গুনাকরকাটি গ্রামে অবস্থিত হজরত ‌শাহ আজিজ (র:) এর রওজা শরিফ
জোড়া শিবমন্দির প্রয়োজনীয় তথ্য শহর থেকে আনুমানিক দুরত্ব ৮ কিলোমিটার। রাস্তার নাম ছয়ঘড়িয়া সড়ক। স্পটে পৌছানোর ব্যয় ২০ টাকা। ভ্রমণের জন্য পাওয়া যায় বাস/রিকসা/ ভ্যান। সাতক্ষীরা শহর থেকে পাঁচ কিলোমিটার উত্তরে আছে ‘ছয়ঘরিয়া জোড়া শিবমন্দির, নানা বৈচিত্র্যের টেরাকোটা ইটে নির্মিত ‘ছয়ঘরিয়া জোড়া শিবমন্দির, ।
তেঁতুলিয়া জামে মসজিদ শহর থেকে আনুমানিক দুরত্ব ২৫ কিলোমিটার। রাস্তার নাম তালা -পাইকগাছা সড়ক। স্পটে পৌছানোর ব্যয় ৩৫ টাকা। ভ্রমণের জন্য পাওয়া যায় বাস, বেবী টেক্সি রিকসা, ভ্যান। উপজেলা মধ্যে বেশ কয়েকটি দর্শনীয় স্থান আছে । বিশেষকরে এ‌ উপজেলার তেঁতুলিয়া গ্রামটি নানা কারণে খ্যাত
শ্যামসুন্দর মন্দির প্রয়োজনীয় তথ্য শহর থেকে আনুমানিক দুরত্ব ৪৫ কিলোমিটার। রাস্তার নাম ।সাতক্ষীরা-যশোর সড়ক, কলারোয়া-সোনাবাড়ীয়া সড়ক স্পটে পৌছানোর ব্যয় ।৬০ টাকা ভ্রমণের জন্য পাওয়া যায় বাস, বেবী টেক্সি রিকসা, ভ্যান। উপজেলা সদরের আট কিলোমিটার পশ্চিমে সোনাবাড়িয়া গ্রামে অপুর্ব শিল্প সৌন্দর্য অঙ্গে ধারণ করে একটি তিনতলার মন্দির আজো টিকে আছে । এর নাম ‘শ্যামসুন্দর মন্দির’
সোনাবাড়িয়া মঠ মন্দির কলারোয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী একটি জনপদ সোনাবাড়িয়া। ২শ’ বছর আগের গোটা সোনাবাড়িয়াজুড়ে জমিদার শাসনের নিদর্শন ছড়িয়ে আছে। এমনই এক প্রাচীন ঐতিহ্যের ধারক সোনাবাড়িয়া মঠ মন্দির। প্রায় ৬০ ফুট উঁচু টেরাকোটা ফলক খচিত শ্যামসুন্দর মন্দিরটি আজও দাঁড়িয়ে আছে প্রাচীন স্থাপত্যের অনুরূপ নিদর্শন হয়ে কলারোয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী একটি জনপদ সোনাবাড়িয়া। ২শ’ বছর আগের গোটা সোনাবাড়িয়াজুড়ে জমিদার শাসনের নিদর্শন ছড়িয়ে আছে।
পি,টি,আই (Primary Training Institute) পি.টি.আই এর দুরত্ব জেলা পরিষদ থেকে ৫ কি:মি: উপজেলা: পরিষদ থেকে ১৩ কি:মি:। আলমডাঙ্গা উপজেলা সদর থেকে ট্রেন, বাস, অটোবাইক, নসিমন, করিমন ইত্যাদিতে পি.টি.আই (Primary Training Institute) এ যাওয়া যায়। এর প্রাকৃতিক পরিবেশ বড়ই মনোরম। বিভিন্ন স্থানের স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা পিকনিক স্পট হিসেবে এখানে আগমন করে থাকে। জেহালা ইউনিয়ন,আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা।
চুয়াডাঙ্গা নুরনগর কলোনী মাঠ পাড়ার ছোট রাস্তা চুয়াডাঙ্গা আন্তজেলা বাস টারমিনাল ইজিবাই বা রিক্সা যোগে বিএডিসি ফাম সংলগ্ন নুরনগর কলোনী পাড়া। চুয়াডাঙ্গা
চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ চুয়াডাঙ্গা বাস টার্মিনাল থেকে অটো, রিকসা করে যাওয়া যায় চুয়াডাঙ্গা
চাঁচড়ার মৎস উৎপাদন কেন্দ্র চাঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মাত্র তিন কিলোঃ মিটার দূরে চাঁচড়ার মৎস উৎপাদন কেন্দ্রটি অবস্থিত।১০ নং চাঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভ্যান/ইজিবাইক/বাস এ করে যাওয়া যায়। চাঁচড়া
সুন্দর বন নদী পথে : খুলনা খেকে লঞ্চযোগে সুন্দর বন। সড়ক পথে : খুলনা খেকে বাসযোগে কয়রা হয়ে সুন্দর বন। কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুর, মহারাজপুর, কয়রা, উত্তর বেদকাশী ও দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের সীমানায় অবস্থিত।
আলমডাঙ্গা রেলওয়ে স্টেশন আলমডাঙ্গা শহর হতে প্রায় ১.৫ কিলোমিটার। আলমডাঙ্গা শহর হতে রিকসা অথবা সিএনজি যোগে যাওয়া যায়। উপজেলাঃ আলমডাঙ্গা, জেলাঃ চুয়াডাঙ্গা
আলমডাঙ্গা বধ্যভূমি আলমডাঙ্গা শহর হতে প্রায় ২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। আলমডাঙ্গা শহরের কালিদাসপুর ইউনিয়নের লালব্রিজ এর নিকটে এটি অবস্থিত। আলমডাঙ্গা শহর হতে যেকোন ধরণের ছোট যানবাহনে আলমডাঙ্গা বধ্যভূমিতে যাওয়া যায়। উপজেলাঃ আলমডাঙ্গা, জেলাঃ চুয়াডাঙ্গা
শিরোমনি খুলনা থেকে বাসে ফুলতলা যাবার পথে শিরোমনি বাসস্ট্যান্ডে নামতে হয়। পরে স্থানীয় হালকা যানবাহনে করে যাওয়া যায়। ফুলতলা
গল্লামারী খুলনা শহরের সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে রিক্সা কিংবা অটোরিক্সায় যাওয়া যায়। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকটে, বটিয়াঘাটা উপজেলায় অবস্থিত।
বীরশ্রেষ্ঠ সমাধিসৌধ খুলনা থেকে বাসে রূপসা উপজেলায় পৌঁছে স্থানীয় যানবাহনে বাগমারা গ্রামে যাওয়া যায়। রূপসা, খুলনা।
সেনহাটি খুলনা থেকে বাসে দিঘলিয়া যাবার পথে নদী পারাপার হয়ে স্থানীয় যানবাহন পাওয়া যায় দিঘলিয়া
বকুলতলা (জেলা প্রশাসকের বাংলো) খুলনা শহরে রূপসা নদীর তীরে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের বাংলো। জেলা প্রশাসক মহোদয়ের উদারতায় যে কোন সময় পরিদর্শনের অনুমতি পাওয়া যায়। খুলনা
রাড়ুলী খুলনা থেকে বাসে পাইকগাছা যাবার পথে, রাড়ুলী পাইকগাছা সংযোগ সড়কে নেমে, সেখান থেকে রিক্সা কিংবা অটোরিক্সায় যাওয়া যায় পাইকগাছা
পিঠাভোগ খুলনা থেকে বাসে রূপসা উপজেলায় গিয়ে সেখান থেকে স্থানীয় যানবাহন পাওয়া যায়। রূপসা
দক্ষিনডিহি খুলনা থেকে বাসে ফুলতলা উপজেলায় গিয়ে, সেখান থেকে অটোরিক্সা কিংবা স্থানীয় বাহনে যাওয়া যায় ফুলতলা
মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ ও ঐতিহাসিক আম্রকানন মেহেরপুর জেলা সদর থেকে সড়ক পথে আম্রকাননের দূরত্ব ১৮ কি: মি:। বাস, স্থানীয় যান টেম্পু/লছিমন/করিমন এর সাহায্যে ৩০ মি: সময়ে ঐতিহাসিক আম্রকাননে পৌছানো যায়। মেহেরপুর সদর হতে বাস ভাড়া ২৫-৩০ টাকা । মুজিবনগর,মেহেরপুর
মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্স মেহেরপুর জেলা সদর থেকে সড়ক পথে আম্রকাননের দূরত্ব ১৮ কি: মি:। বাস, স্থানীয় যান টেম্পু/লছিমন/করিমন এর সাহায্যে ৩০ মি: সময়ে ঐতিহাসিক আম্রকাননে পৌছানো যায়। যাতায়াত ভাড়া : মেহেরপুর সদর হতে বাস ভাড়া ২৫-৩০ টাকা । মুজিবনগর,মেহেরপুর
আমদহ গ্রামের স্থাপত্য নিদর্শন মেহেরপুর জেলা সদরে এটি অবস্থিত। বাস টার্মিনাল হতে রিক্সা/ভানে পৌঁছানো যায় মেহেরপুর
সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির মেহেরপুর জেলা সদরে এটি অবস্থিত। বাস টার্মিনাল হতে রিক্সা/ভানে পৌঁছানো যায়। মেহেরপুর
আমঝুপি নীলকুঠি মেহেরপুর জেলা সদর থেকে সড়ক পথে দূরত্ব ৭ কি: মি: । বাস, স্থানীয় যান টেম্পু/লছিমন/করিমন এর সাহায্যে ২৫ মি: সময়ে আমঝুপি নীলকুঠিতে পৌঁছানো যায়। আমঝুপি,সদর উপজেলা,মেহেরপুর
ভাটপাড়ার নীলকুঠি, সাহারবাটি মেহেরপুর জেলা সদর থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ১৭ কি: মি: । বাস, স্থানীয় যান টেম্পু/লছিমন/করিমন এর সাহায্যে ৪০মি: সময়ে ভাটপাড়া নীলকুঠিতে পৌঁছানো যায়। সাহারবাটি,গাংনী,মেহেরপুর
ভবানন্দপুর মন্দির মেহেরপুর জেলা সদর থেকে সড়ক পথে দুরত্ব ১০ কি: মি:। স্থানীয় যান টেম্পু/লছিমন/করিমন এর সাহায্যে ২০ মি: সময়ে ভবানন্দপুর পৌঁছানো যায়। ভবানন্দপুর,সদর উপজেলা
মেহেরপুর পৌর কবর স্থান মেহেরপুর জেলা সদরে এটি অবস্থিত। মেহেরপুর বাসটার্মিনাল থেকে রিক্সা/ভানে পৌছানো যায়। মেহেরপুর সদর
পৌর ঈদগাহ মেহেরপুর জেলা সদরে এটি অবস্থিত। মেহেরপুর বাসটার্মিনাল থেকে রিক্সা/ভানে পৌছানো যায়। মেহেরপুর সদর
মেহেরপুর পৌর হল মেহেরপুর জেলা সদরে এটি অবস্থিত। বাস টার্মিনাল হতে রিক্সা/ভানে পৌঁছানো যায়। মেহেরপুর সদর
হযরত খানজাহান আলী (রঃ) ও তাঁর মাজার বাগেরহাট জেলা থেকে অটোযোগে হযরত খানজাহান আলী (রঃ) এর মাজার যাওয়া যায় বাগেরহাট
ষাট গম্বুজ মসজিদ বাগেরহাট জেলা থেকে অটোযোগে ষাট গম্বুজ মসজিদে যাওয়া যায় বাগেরহাট সদর, বাগেরহাট
খাঞ্জেলী দীঘি বাগেরহাট জেলা থেকে অটোযোগে খাঞ্জেলী দীঘিতে যাওয়া যায় বাগেরহাট
সিংগাইর মসজিদ বাগেরহাট
সাবেকডাঙ্গা পূরাকীর্তি বাগেরহাট
জিন্দাপীর মসজিদ বাগেরহাট
অযোধ্যা মঠ/কোদলা মঠ বাগেরহাট
বাগেরহাট জাদুঘর বাগেরহাট
তপনভাগ দিঘী তুলারামপুর থেকে সড়ক পথে ১৫ কি.মি। তপনবাগ, শেখহাটি।
সিরাজ সাই'র মাজার হরিণাকুণ্ডু উপজেলা হতে সড়ক পথে সাতব্রীজ বাজার হয়ে হরিশপুর গ্রামে সিরাজ সাই'র মাজারে যাওয়া যাবে। হরিশপুর, হরিণাকুণ্ডু, ঝিনাইদহ।
লালন শাহের ভিটা হরিণাকুণ্ডু উপজেলা হতে সড়ক পথে সাতব্রীজ হয়ে হরিশপুর গ্রামে লালন শাহের ভিটায় যাওয়া যাবে। হরিশপুর, হরিণাকুণ্ডু, ঝিনাইদহ।
ফকির মাহমুদ বিশ্বাসের মাজার হরিণাকুণ্ডু উপজেলা পরিষদ হতে উত্তর দিকে সড়ক পথে কুলবাড়ীয়া বাজার হয়ে ফকির মাহমুদ বিশ্বাসের মাজারে যাওয়া যায়। কুলবাড়ীয়া বাজারের পূর্ব দিকে অবস্থিত।
পাঞ্জু শাহের মাজার হরিণাকুণ্ডু বাসস্ট্যান্ড অথবা হরিণাকুণ্ডু উপজেলা পরিষদ হতে সড়কপথে সাতব্রীজ বাজার হয়ে হরিশপুর গ্রামে অবস্থিত পাঞ্জু শাহের মাজারে যাওয়া যায় জোড়াদহ ইউনিয়নের হরিশপুর গ্রামে পাঞ্জু শাহের মাজার অবস্থিত।
চাঁচড়া রাজবাড়ী চাঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মাত্র চার কিলোঃ মিটার দূরে চাঁচড়ার রাজবাড়ী অবস্থিত । ১০ নং চাঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভ্যান/ইজিবাইক/বাস এ করে যাওয়া যায়। চাঁচড়া বাজারের আশে পাশে।
নলডাঙ্গা মন্দির নলডাঙ্গা মন্দির
যশোরের বধ্যভূমি যশোর শহর থেকে শঙ্করপুর বধ্যভূমি চাঁচড়া, যশোর
মিয়ার দালান ঝিনাইদহ শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে মুরারিদহ নামক গ্রামে এটি অবস্থিত ।ভ্যান রিক্সা, ইজিবাইক যোগে এই মিয়ার দালান জমিদার বাড়ি যাওয়া যায় । ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ৩ কি.মি
গাজী কালু - চম্পাবতীর মাজার ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বার বাজারের পূর্বপাশে ১ কিঃ মিঃ দূরে গাজী কালু-চম্পাবতীর মাজার অবস্থিত।ঝিনাইদহ থেকে বাস অথবা সিএনজি দ্বারা গাজী কালু-চম্পাবতীর মাজার দেখতে যাওয়া যায় । ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বার বাজারের পূর্বপাশে ১ কিঃ মিঃ দূরে গাজী কালু-চম্পাবতীর মাজার অবস্থিত।
কামান্না ২৭ শহীদের মাজার ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে সড়ক পথে বাস অথবা সিএনজি যোগে যেতে হয়(ঝিনাইদহ থেকে দুরত্ব ৪২ কি.মি)। শৈলকুপা,ঝিনাইদহ (ঝিনাইদহ থেকে দুরত্ব ৪২ কি.মি)
কবি গোলাম মোস্তফার বাড়ি ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে সড়ক পথে বাস অথবা সিএনজি যোগে শৈলকুপা যেতে হবে এবং সেখান থেকে রিক্সা অথবা ভ্যান যোগে মনোহর পুর গ্রামে যাওয়া যায় ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার মনোহর পুর গ্রামে কবি গোলাম মোস্তফার বাড়ী অবস্থিত।
বাউল সম্রাট লালন শাহের মাজার কুষ্টিয়া বাস স্ট্যান্ড হতে রিক্সা/অটোরিক্সাযোগে ছেউরিয়া নামক স্থানে, ভাড়া ৩০-৫০/-। কুষ্টিয়া বড় রেলস্টেশন হতে বাস স্ট্যান্ড হতে রিক্সা/অটোরিক্সাযোগে ছেউরিয়া নামক স্থানে, ভাড়া ২০-৩০/-। ছেঁউরিয়া, কুমারখালী, কুষ্টিয়া।